মহামন্ত্রীর ব্রতকথা

---------------মহামন্ত্রীর ব্রতকথা---------------

               ------দ্বারক ঘোষ 

শোনো গো শোনো সবে 
করি নিবেদন----
শোনো গো শোনো সবে
দিয়ে প্রাণ-মন ।

একদা শিকারী এক 
গেল বনের ধার----
তেড়ে এলো সে যে এক
বৃহৎ গণ্ডার ।

শিকারী করিয়া তাক 
গুলি মারে ছুঁড়ে ----
গন্ডারের গাত্রটি 
সামান্য ফুঁড়ে ।

ঘটনার হপ্তা পরে 
কেঁপে উঠে বন, 
শোনো গো শোনো সবে 
শোনো দিয়া মন ।

কি হ'লো কি! হ'লো কি টা! 
সবে ভাবিতেছে, 
দেখে সে যে গণ্ডার----
শুধু হাসিতেছে !

ব্যাপার কি !ভাবনাতে 
গেল সবে লেগে----
উঠেছে হপ্তা পর
কাতুকুতু জেগে !

সাতপুরু চামড়াতে 
গণ্ডার ধন----
শোনো গো শোনো সবে
শোনো দিয়া মন ----


শত শত মাইলের 
দূর দূর পথ----
শ্রমিকের হেঁটে পাড়ি ----
ভাঙা মনোরথ !

পথেঘাটে প্রান্তরে 
প্রাণ গেল কত ?
সে হিসাব রাখে নাই----
সরকার যত! 

মর্ তোরা অভাগারা
রাস্তায় ঘাটে, 
উঠুক না হাভেতের 
জীবনটা লাটে ।

বাজা তোরা থালাবাটি 
বাজা তোরা শাঁখ----
তোদের প্রাণের বাজি
শুধু দশ লাখ !

একমাস দেড়মাস 
পার হ'লে পরে----
চোদ্দপুরু চামড়ায় 
সুড়সুড়ি ধরে  !

অবহেলা বঞ্চনা 
শ্রমিকের সাথি----
সরকার বাহাদুর
হ'লো মনোব্যথী  (!)

দরদটা উথলিয়ে 
গ'ড়ে গ'ড়ে পড়ে----
পাঠাইতে তৎপর 
শ্রমিকেরে ঘরে  ।

আহা আহা ওরা যে গো 
রুখা মাথা-ধন----
শোনো গো শোনো সবে 
শোনো দিয়া মন----

শ্রমিকের থাকা-খাওয়া 
সব দায় ঝেড়ে,
মহামন্ত্রী উঠলেন----
সে যে তেড়েফুঁড়ে! 

বললেন , শোন শোন
শোন দিয়া মন----
দেশের মাথা আমি 
করি বর্ণন----

গরু-ভেড়া ছাগলের 
কি বা দাম আছে ?
'নীরব'-এতে গদি 'মোদি '
আমাদের কাছে  ।

শোন ওরে, শোন তোরা 
আমি মহাজন----
তোদের দুখেতে সদা 
বিগলিত মন ।

তাই আমি দণ্ডমান----
বংশদণ্ড হাতে , 
চৌকিদারীর সুযোগে 
মারি ভাই মাথে ।

পশুসম তোদেরকে 
চলানটা ক'রে----
প্রতিশ্রুতি পালন 
করলাম ওরে ।

করোনার ভাইরাস 
দিলো মোরে শ্বাস,
গোপনেতে সারলাম----
কালা বিল পাশ ।

আট ঘণ্টা কাল ছিল 
কর্মের নীড়----
বারোটা বাজিয়ে করি 
বারো ঘন্টা স্থির ।

এছাড়াও জাতপাত 
সুযোগটা বুঝে----
জ্ঞানীদের (!) মাথাতে
দিলামরে গুঁজে ;

জ্ঞানান্ধ হয়ে থাক----
জাতপাতে মেতে ,
পাস বা না পাস ওরে 
কিছু খেতেপেতে ।

নানা ছলে,নানা ভাবে 
ধম্মের বিষ----
ঢেলে দিই প্রয়োজনে 
সেটাই গিলিস ।

সুযোগটা হাতছাড়া 
করিনিরে তাই----
ধম্মটা দেগে দিই
করোনার গায় ।

তোরা সদা খুশ রবি----
এ-আচ্ছি বাত ,
 চিন্তায় কাটে মোর
বিনিদ্র রাত  !

জানিস রে সব তোরা----
আমি নই বদ, 
লকডাউন ভেঙে তাই
জারি রাখি মদ ।

যে 'কারণ' ভ'রে দেয়
দেশের ভাণ্ডার----
তাহাকে বন্দি রাখা 
সমুচিত কার ?

শিল্পপতি সব মোর
আশির্বাদিগণ,
পদতলে ব'সে করি 
কৃচ্ছ্রসাধন ।

শোন শোন শোন ওরে----
ওরে  বাছাধন,
শোন ওরে শোন্ সবে
শোন দিয়া মন---- 

মালিকের মস্তকে 
রহে মোর স্থান----
শ্রমিকের গ্রাস কেড়ে
তারে করি দান ;

জনতার অধিকার
কেড়ে নিই যত----
মালিক সেবার নীতি 
রহে মোর ব্রত ।

শুনিলেন সবে ওগো 
সব সুধীজন----
মহামন্ত্রীর ব্রতকথা 
হইলো বর্ণন ।

No comments

Powered by Blogger.